NarayanganjToday

শিরোনাম

আলীগঞ্জ মাঠ থেকে চুন্নু, মুন্নাদের মত খেলোয়াড় তৈরি হবে : পলাশ


আলীগঞ্জ মাঠ থেকে চুন্নু, মুন্নাদের মত খেলোয়াড় তৈরি হবে : পলাশ

জাতীয় শ্রমিক লীগ নেতা কাউসার আহম্মেদ পলাশ বলেছেন, শিল্প সাহিত্য সংস্কৃতির সূতিকাগার নারায়ণগঞ্জ। এখান থেকেই জাতীয় ও আন্তর্জাতিক অঙ্গনে প্রতিনিধিত্ব করেছিলেন চুন্নু, মোনেম মুন্না, গাউস, আজমত, এমিলি,স্বপনদের মত তারকা খেলোয়াড়রা।

রোববার (৯ ফেব্রæয়ারি) সকালের দিকে আলীগঞ্জ মাঠে মুজিব জন্মশত বার্ষিকী উপলক্ষে আলীগঞ্জ ক্লাবের ব্যবস্থাপনায় জননী ফিলিং ও জননী ব্রীজ স্কেলের উদ্যোগে (অনুর্ধ্ব ১৪) ফুটবল টুর্নামেন্টের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

পলাশ বলেন, আজকাল অনেকেই ঢাকার ক্লাবগুলোতে খেলতে যায়। কিন্তু অতীতের মত তেমন ভাবে আর স্টার হয় না তারা। এর একটাই কারণ। তা হলো, আমাদের এখন মাঠের বড়ই সঙ্কট। যে কারণে অনুশীলন করতে পারে না তারা। তারকা খেলোয়াড় হতে হলে কঠোর অনুশীলন করতে হয়। পরিশ্রম করতে হয়। কিন্তু আমাদের নতুন প্রজন্ম মাঠের অভাবে এর থেকে বঞ্চিত।

তিনি বলেন, একটা সময় পাড়া মহল্লায় মাঠ ছিলো। অনুশীলন হত। প্রতিদিনই খেলা হতো। খেলার প্রতি মানুষের একটা ঝোঁক ছিলো। এক মহল্লার সাথে আরেক মহল্লার টিম হতো। উৎসব হত। আনন্দ উৎসাহ নিয়ে আমরা খেলতে যেতাম। চর্চা ছিল। এভাবেই তৈরি হয়েছিলো চুন্নু, মোনেম মুন্নাদের মত দেশ বরেণ্য খেলোয়াড়রা।

পলাশ বলেন, ফুটবলের সেই অতীত গৌরব ইতিহাস পুনঃরূদ্ধারের লক্ষ্যে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা প্রতিটি উপজেলাতে একটি করে মিনি স্টেডিয়াম করার ঘোষণা দিয়েছেন। নতুন প্রজন্মকে নেশামুক্ত, সন্ত্রাস থেকে দূরে রাখার জন্য প্রধানমন্ত্রী ঘোষণা যোগাপোযুগি। এ ঘোষণার বাস্তবায়ন হলে এই আলীগঞ্জ মাঠ থেকেই একদিন অতীতের মত চুন্নু, মুন্না, এমিলিদের মত খেলোয়াড় তৈরি হবে। তারাও জাতীয় পর্যায়ে প্রতিনিধিত্ব করবে। তাই, কোনো কিছুর বিনিময়েও এই মাঠ আমরা ছাড়বো না। অতীতে যেভাবে মাঠ রক্ষায় আন্দোলন করেছি, ভবিষ্যতেও তাই করবো।

আলীগঞ্জ ক্লাবের সাধারণ সম্পাদক হাজী মো. নুরুল ইসলামের সভাপতিত্বে উদ্বোধনি অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন কুতুবপুর ইউনিয়ন পরিষদের ৭ নং ওয়ার্ড ইউপি সদস্য মো. জাহাঙ্গীর আলম, বাংলাদেশ ফুটবল সাপোর্টার্স ফোরামের সাধারণ সম্পাদক শাহাদাত হোসেন জোবায়ের, আলীগঞ্জ ক্লাবের ক্রীড়া ও সাংস্কৃতিক সম্পাদক গোলাম কিবরিয়া সাত্তার, সদস্য মো. তোফাজ্জ্বল হোসেন, মিজানুর রহমান, মো. মামুন প্রমূখ।

উল্লেখ অনুর্ধ্ব-১৪ ফুটবল টুর্নামেন্টে ১২ টি দল নক আউট পদ্ধতিতে খেলায় অংশগ্রহণ করে। উদ্বোধনি দিনে ৬ টি খেলা অনুষ্ঠিত হয়। খেলায় রেফারির দ্বায়িত্ব পালন করেন মো. রজ্জব আলী, আনোয়ার হোসেন ও মো. আইয়ুব আলী এবং ধারাভাষ্য দেন মো. নজরুল ইসলাম ও জিয়াউল হাসান ঠান্ডা।

৯ ফেব্রুয়ারি, ২০২০/এসপি/এনটি

উপরে