NarayanganjToday

শিরোনাম

মানছে না কোয়ারেন্টাইন : কারো মেয়ের বিয়ে, কেউ বাজারে কেউ বা শ্বশুরবাড়ি


মানছে না কোয়ারেন্টাইন : কারো মেয়ের বিয়ে, কেউ বাজারে কেউ বা শ্বশুরবাড়ি

নারায়ণগঞ্জে বিদেশফেরত অনেকেই মানছেন না হোম কোয়ারেন্টাইন। প্রশাসনের কড়াকড়ির পরও অনেকে চলে আসছেন লোকালয়ে। কেউ যাচ্ছেন মসজিদে, কেউ বাজারে, কেউ বা আবার শ্বশুর বাড়িতে আসছে দাওয়াতে আবার কেউ ধুমধামে আয়োজন করছেন মেয়ের বিয়ের।

সরকারি নির্দেশনা মোতাবেক বিদেশফেরতদের বাধ্যতামূলক ১৪ দিন হোম কোয়ারেন্টাইনে থাকতে হবে। কিন্তু জেলায় ইতোমধ্যে পাঁচ হাজারের অধিক মানুষ ইউরোপ, আমেরিকাসহ মধ্যপ্রাচ্যের বিভিন্ন দেশ থেকে আসলেও তাদের বিপরীতে পুরো জেলাজুড়ে কোয়ারেন্টাইনে রয়েছে মাত্র ৭৩ জন। তারমধ্যে অনেকেই আবার মানছেন না সরকারি নির্দেশনাও।

এদিকে প্রশাসনের সূত্র মতে গত চারদিনে জেলাব্যাপী অভিযান চালিয়ে ৯ জন বিদেশফেরত ব্যক্তিকে জরিমানা করা হয়েছে। এসব ব্যক্তিদের মধ্যে কেউ দুবাই, কেউ ইতালি, কেউ জর্ডান আবার কেউ সৌদিফেরত। তারা সরকারি নির্দেশা না মেনেই কেউ বাজার করতে, কেউ পারিবারিক ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে আবার কেউ দিচ্ছিলেন ধুমধামে মেয়ের বিয়ে।

সূত্র জানায়, ইতালি থেকে এক ব্যক্তি ফিরেছেন মাত্র ৬ দিন। তিনি এসেই চলে আসেন রূপগঞ্জের শ্বশুর বাড়িতে। এই উপলক্ষে বাড়িটিতে চলছিল উৎসব। তার আগমনের সংবাদে এ বাড়ি আসেন আরও দুই মেয়েসহ তাদের জামাই। বিষয়টি লোকমুখে জানতে পারেন উপজেলা প্রশাসন। এরপরই শুক্রবার (২০ মার্চ) অভিযানে নামেন ইউএনও মমতাজ বেগম। ইতালিফেরত ওই প্রবাসীর শ্বশুরকে ১০ হাজার টাকা জরিমানা করেন। পাশাপাশি পুরো পরিবারকে হোম কোয়ারেন্টাইনে থাকার নির্দেশ দেন এবং বাড়িতে একটি নোটিশ বোর্ড টানিয়ে দিয়ে যান।

মমতাজ বেগম নারায়ণগঞ্জ টুডে’কে বলেন, মাত্র ৬দিন আগে ইতালি থেকে এসেছেন ওই ব্যক্তি। কিন্তু এরমধ্যেই তার শ্বশুর তমিজউদ্দিন তাকে দাওয়াত করে বাড়িতে নিয়ে আসেন। তিনি এখানে এসে প্রকাশ্যেই ঘোরাফেরা করছিলেন। সংবাদ পেয়ে অভিযান চালাই। এসময় ইতালি ফেরত ব্যক্তির শ্বশুরকে ১০ হাজার টাকা জরিমানা করি। এছাড়াও ইতালি ফেরত ব্যক্তিকে হোম কোয়ারেন্টাইনে রাখার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে এবং আইইডিসিআর-এ খবর দেওয়া হয়েছে। সেখানকার লোকজন এসে ওই প্রবাসীর স্বাস্থ্য পরীক্ষা করবে ও নমুনা সংগ্রহ করবে। তার সংস্পর্শে আসায় বাড়ির অন্য সদস্যদের হোম কোয়ারেন্টাইনে থাকার নির্দেশ দেয়া হয়েছে।

অন্যদিকে একই দিন বিকেলে সোনারগাঁয়ে উপজেলায় এক ইতালি প্রবাসীসহ তিনজন বিদেশফেরত ব্যক্তিকে ৭০ হাজারা টাকা জরিমানা করেন উপজেলা প্রশাসন। তারাও হোম কোয়ারেন্টাইন না মেনে অবাধে চলাফেরা করছিলেন। এরমধ্যে ইতালি ফেরত সনমান্দি ইউনিয়নের মৃত তমিজ উদ্দিনের ছেলে মো. কাদির দশদিন পূর্বে ইতালি থেকে ফিরেছেন। তিনি এদিন মেয়ের বিয়ে দিচ্ছিলেন। এ উপলক্ষে ব্যাপক আয়োজনও করেন। আগত মেহমানদের সাথে হ্যান্ডশেকসহ কোলাকুলিও করছিলেন। অন্য দুজন অবাধে চলাফেরাসহ মসজিদে যেয়ে নামাজও পড়েছেন, চায়ের দোকানে আড্ডাও দিয়েছেন। তাদের দুজনকে ১০ হাজার টাকা করে জরিমান করে প্রশাসন।

সোনারগাঁ উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মো. সাইদুল ইসলাম নারায়ণগঞ্জ টুডে’কে বলেন, বিদেশফেরতদের হোম কোয়ারেন্টাইনে বাধ্যতামূলক করা হয়েছে ১৪ দিন। কারা বিদেশ থেকে আসছে। তারা নির্দেশনা মানছেন কিনা, এ ব্যাপারটি আমরা প্রতিনিয়তই ওয়াচে রাখছি। এরমধ্যে জানতে পারি ইতালিফেরত ওই প্রবাসি দশদিন আগে এসেছেন। তিনি কোয়ারেন্টাইন না মেনেই মেয়ের বিয়ে দিচ্ছে বেশ ধুমধামে। মসজিদে নামজও পড়েছেন। অবাধে মেলামেশা করছিলেন সবার সাথে। তাকে আমরা ৫০ হাজার টাকা জরিমানা করেছি। এবং পুনরায় নির্দেশনা অমান্য করলে শহরের প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টাইনে পাঠানোসহ মোটা অঙ্কের জরিমানা করা হবে জানিয়ে সতর্ক করে আসছি। পাশাপাশি অন্য দুজনকে দশ হাজার টাকা করে জরিমানা করেছি।

এর আগে ফতুল্লায় দুজন প্রবাসফেরত যুবককে জরিমানা করেন সদর ইউএনও নাহিদা বারিক। ওই দুই যুবক মধ্যপ্রাচ্যের দেশ থেকে ফিরেছিলেন। তাদের একজন অবাধে চলাফেরা করছিলেন অপরজন বসেছিলেন নিজেদের দোকানে। একইদিন বন্দরে এক যুবককে অবাধে চলাফেরার অভিযোগে জরিমানা করেন বন্দর ইউএনও শুল্কা সরকার। এছাড়াও ১৯ মার্চ বন্দরে আরও দুজন প্রবাসফেরত ব্যক্তিকে জরিমানা করা হয়েছে। তাদের একজন জর্ডান অপরজন দুবাইফেরত ছিলেন।

২১ মার্চ, ২০২০/এসপি/এনটি

উপরে