NarayanganjToday

শিরোনাম

নারায়ণগঞ্জের ‘স্বপ্নের ফেরিওয়ালা’ শামীম ওসমান


নারায়ণগঞ্জের ‘স্বপ্নের ফেরিওয়ালা’ শামীম ওসমান

স্কাই সিটি, ড্যান্সিং ওয়াটার পার্ক, বিশ্ববিদ্যালয়, আন্তর্জাতিক মানের স্কুল, মেডিকেল কলেজ গড়ে তোলার কথা বলেছেন সাংসদ শামীম ওসমান। ২০১১ সাল থেকে এ পর্যন্ত তিনি অত্যন্ত সুন্দর কয়েকটি প্রতিষ্ঠান ও স্থাপনার স্বপ্ন বুনেছেন।

তবে, এখনও পর্যন্ত একটিও বাস্তবায়িত হয়নি। এরমধ্যে নতুন করে তিনি শহরবাসীকে হৃদরোগ ইনস্টিটিউটের গড়ার স্বপ্ন দেখাতে শুরু করেছেন। যদিও এগুলো নারায়ণগঞ্জে স্থাপতি হলে উপকৃত হবে এখানকার মানুষ। এবং এসব যে অত্যন্ত জরুরী জেলার জন্য সেটিও অনুধাবন করছেন মানুষ। কিন্তু যা বাস্তবায়িত হয় না বা করা যায়নি, তেমন স্বপ্ন সাগরে মানুষকে কেন ভাসানো হয়, এমন কৌতুহলও রয়েছে মানুষের মাঝে।

তবে, কেউ কেউ বলছেন, সুন্দর সুন্দর স্বপ্ন হয়তো একজন দেখাতে শুরু করেন। আর সেই স্বপ্ন নিয়ে যখন মানুষ এগিয়ে যায় তখন স্বপ্ন বাস্তবায়নের একটা সুযোগ তৈরি হয়। সাংসদ শামীম ওসমান যে স্বপ্ন নগরবাসীকে দেখাচ্ছেন তা তিনি পূরণ করতে না পারলেও মানুষের মনের ভেতর স্বপ্নে বিজ বোপন করতে পেরেছেন। যা নারায়ণগঞ্জবাসীর চাহিদা হয়ে উঠবে আর কোনো না কোনো সময়, কেউ না কেউ এই স্বপ্ন বাস্তাবায়নে এগিয়ে আসবে।

সূত্র বলছে, ২০১১ সালে নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের প্রথম নির্বাচনে মেয়র প্রার্থী হয়েছিলেন শামীম ওসমান। সেসময় তিনি প্রচারণাকালে মানুষদেরকে প্রতিশ্রুতি দিয়ে বলেছিলেন, তিনি নির্বাচিত হতে পারলে পুরো সিটি করপোরেশন এলাকা হবে স্কাই সিটি। প্রতিটি বাড়ি, ভবনের রঙ হবে এক ‘আকাশী’। এছাড়াও একই সময় তিনি ডিএনডি খাল তথা লেকটিকে ড্যান্সিং ওয়াটার পার্ক বানাবেন বলেও প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন। কিন্তু সে নির্বাচনে তিনি আইভীর কাছে পরাজিত হন।

পরবর্তীতে ২০১৩ সালে জাতীয় সংসদ সদস্য হিসেবে দ্বিতীয়বারের মত নির্বাচিত হয়ে তিনি মানুষকে স্বপ্ন দেখাতে শুরু করেন, নারায়ণগঞ্জে একটি উন্নতমানের মেডিকেল কলেজ, একটি বিশ্ববিদ্যালয় এবং আন্তর্জাতিক মানের একটি রেসিডেনসিয়াল স্কুল প্রতিষ্ঠা করবেন। এমনটি তার স্বপ্ন বলেও তিনি উল্লেখ করেছিলেন বেশ কয়েকটি সভাতে। তবে, সেসব এখনও বক্তৃতার মাঝেই সীমাবদ্ধ রয়ে গেছে।

এরমধ্যে কাজ শুরু হয়েছে ডিএনডি প্রকল্প। যা তিনটি সংসদীয় আসন নিয়ে এই প্রকল্প হচ্ছে। যদিও এটি সম্পূর্ণ কৃতিত্ব সাংসদ শামীম ওসমান নিজের বলে মনে করে থাকেন। সম্প্রতি তিনি এ-ও বলেছেন, এই প্রকল্পের জন্য আরও দেড় হাজার কোটি টাকা তিনি সরকারের কাছে চেয়েছেন। তবে, তাই যদি হয় তাহলে এই প্রকল্পটি সত্যিকার্থে নারায়ণগঞ্জে অন্যরকম একটি দর্শনীয় স্থান হয়ে উঠবে।

এদিকে সম্প্রতি নারায়ণগঞ্জ জেলা আইনজীবী সমিতি নির্বাচনে আওয়ামী লীগ পন্থী আইনজীবী প্যানেলের পরিচিত সভায় সাংসদ শামীম ওসমান পুরান কোর্ট এলাকা তৈরি করা মেজিস্ট্রেট আদালতকে হৃদরোগ ইনস্টিটিউট করবেন বলে জানিয়েছেন। তিনি এ-ও বলেছেন, এ ব্যাপারে আইনমন্ত্রীর সাথে তার কথা হয়েছে। তবে, এটি সত্যি সত্যি প্রতিষ্ঠিত হলে নারায়ণগঞ্জবাসীই সব থেকে বেশি উপকৃত হবে। কিন্তু প্রশ্ন হচ্ছে, একটি হাসপাতাল নির্মাণ করতে হলে যে পরিমাণ জায়গা দরকার হয় এবং পরিকল্পনা মাফিক যেভাবে ভবন তৈরি করতে হয়, এই ভবনটি সে উপযোগি নয়। তাই সাংসদ সুন্দর একটি স্বপ্ন দেখালেও সেটি বাস্তবায়ন কতটা সহজ হবে, তা সময়ই বলে দিবে বলে মনে করেন শহবাসী।

তবে, সাংসদ শামীম ওসমান শহরবাসীর মাঝে যে সমস্ত সুন্দর সুন্দর স্বপ্ন বুনে চলেছেন সেটিকেও অনেকে ইতিবাচক বলে মন্তব্য করেছেন। স্বপ্নই মানুষকে অনেকদূর নিয়ে যায়। কাউকে না কাউকে স্বপ্নে ফেরিওয়ালা হতেই হয়। সে ক্ষেত্রে নারায়ণগঞ্জে স্বপ্নের ফেরিওয়ালা শামীম ওসমান। তার দেখা সুন্দর স্বপ্নগুলো কোনো এক সময় বাস্তবায়িত হবে, এমনটাই প্রত্যাশা করেন মানুষ।

২৬ ডিসেম্বর, ২০২০/এসপি/এনটি

উপরে