NarayanganjToday

শিরোনাম

নাসিম ওসমানের মৃত্যু বার্ষিকীতে মেয়ের আবেগঘন স্ট্যাটাস


নাসিম ওসমানের মৃত্যু বার্ষিকীতে মেয়ের আবেগঘন স্ট্যাটাস

প্রয়াত সাংসদ নাসিম ওসমানের ষষ্ঠ মৃত্যু বার্ষিকী ছিল বৃহস্পতিবার (৩০ এপ্রিল)। ২০১৪ সালের ৩০এপ্রিল ভারতের রাজধানী দিল্লীর দেরাদুন শহরে থাকা অবস্থায় হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে মৃত্যুবরন করেন। সে সময় তার মৃত্যুতে নারায়ণগঞ্জজুড়ে নেমে এসেছিল শোকে ছায়া।

তবে, সাংসদ নাসিম ওসমানের মৃত্যুর ৬ বছরেও তার শোক ভুলতে পারেনি তার পরিবার, স্ত্রী সন্তানসহ অন্যরা।

এদিকে বৃহস্পতিবার (৩০ এপ্রিল) রাতে প্রয়াত সাংসদ নাসিম ওসমানের ষষ্ঠ মৃত্যু বার্ষিকীতে তার মেয়ে আফরিন ওসমান নিজের ফেসবুক আইডিতে আবেঘন একটি স্ট্যাটাস দিয়েছেন। সেখানে তিনি প্রয়াত এই সাংসদের সাথে তার দুটি দুর্লভ ছবিও পোস্ট করেন।

আফরিন ওসমান লিখেন, “ছয় বছর হয়ে গেল তুমি দুনিয়াতে নাই আব্বু... ছয়টা বছর কীভাবে চলে গেল জানিনা... একদিন এর জন্যও মনে হয় নাই তুমি আমার সাথে নাই আব্বু... যখনি কোন খারাপ সময় গেছে সব সময় মনে হয়েছে তুমি এবং তোমার দোয়া আমার সাথে আছে...।”

আফরিন আরও লিখেন, “এখন আমার জীবনের সবচেয়ে কঠিন সময় তোমাকে সশরীরে আমার পাশে আমার অনেক দরকার ছিল...জানি তোমার দোয়া ও তুমি আমার সাথে আছো, কিন্তু আমি তোমার বুকে মাথা রেখে যে শান্তিটা পেতাম সেই শান্তিটা পেতে অনেক বেশী ইচ্ছা করছে আব্বু...।”

এছাড়াও তিনি তার পিতার রুহের মাগফিরাত কামনা করে লিখেছেন, “অনেক ভাল থেকো আব্বু, আল্লাহ তোমার সব গুনাহ মাফ করে তোমাকে যেন জান্নাতুল ফেরদৌস নসীব করেন...আমীন...।”

প্রসঙ্গত, এ.কে.এম সামসুজ্জোহার পাঁচ সন্তানের মধ্যে জ্যেষ্ঠ সন্তান বীর মুক্তিযোদ্ধা প্রয়াত নাসিম ওসমান। ১৯৫৩ সালের ৩১ জুলাই তিনি জন্মগ্রহন করেন। তিনি ছিলেন নারায়ণগঞ্জের গণমানুষের প্রাণের নেতা।

নাসিম ওসমান ১৯৭১ সালে মহান স্বাধীনতা যুদ্ধে সুইসাইড স্কোয়াডে যুদ্ধ করেছেন। পরবর্তীতে ১৯৭৫ সালে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান স্বপরিবারে নিহত হওয়ার পর নববধূকে রেখে বঙ্গবন্ধু হত্যার প্রতিশোধ নিতে সশস্ত্র যুদ্ধে অবতীর্ণ হন এবং কাদেরিয়া বাহিনীতে যোগদান করেন।

পরবর্তীতে ১৯৮১ সালে তিনি দেশে ফিরে আসেন। প্রয়াত নাসিম ওসমান ১৯৮৬ ও ১৯৮৮ সালে জাতীয় পার্টি মনোনীত প্রার্থী এবং ২০০৮ ও ২০১৪ সালে মহাজোট প্রার্থী হিসেবে জাতীয় সংসদ সদস্য হিসেবে নির্বাচিত হয়েছিলেন। নারায়ণগঞ্জের ইতিহাসে তিনি সর্বাধিক ৪ বারের নির্বাচিত জাতীয় সংসদের সদস্য। ২০১৪ সালের ৩০ এপ্রিল তার অকাল মৃত্যু পরবর্তী সংসদ অধিবেশনে শোক প্রস্তাব রাখতে গিয়ে অজোড়ে কেঁদে ছিলেন সংসদ নেতা ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

৩০ এপ্রিল, ২০২০/এসপি/এনটি

উপরে