NarayanganjToday

শিরোনাম

নিতাইগঞ্জের মুক্তিযোদ্ধা সংসদ শুক্কুর মাহমুদ অনুসারি চুন্নু‍‍`র দখলে!


নিতাইগঞ্জের মুক্তিযোদ্ধা সংসদ শুক্কুর মাহমুদ অনুসারি চুন্নু‍‍`র দখলে!

মুক্তিযোদ্ধা সংসদের বিআইডব্লিউটিসি ইউনিট কমান্ডের নিতাইগ্ঞ্জস্থ কার্যালয়টি এখন জাকির হোসেন চুন্নুর ব্যক্তিগত কার্যালয়ে পরিনত হয়েছে। এখানে জুয়ার আসরসহ বিভিন্ন অপকর্ম সংঘটিত হওয়ারও অভিযোগ উঠেছে।

চুন্নু শ্রমিকলীগ সভাপতি শুক্কুর মাহমুদের ছত্রচ্ছায়ায় সে চাঁদাবাজিসহ বিভিন্ন সন্ত্রাসী কর্মকান্ডে নেতৃত্ব দিয়ে যাচ্ছে। ফলে তাকে কেউ কিছু বলতে সাহস পায় না।

এ ব্যাপারে ‘আমরা মুক্তিযোদ্ধার সন্তান সংগঠন’ বিআইডব্লিউটিসি ইউনিট সংস্থার চেয়ারম্যান বরাবর চিঠি দিয়ে কার্যালয়টি তাদের কাছে হস্তান্তরের দাবি জানিয়েছেন। ৯ সেপ্টেম্বর পেশকৃত চিঠির অনুলিপি নৌপরিহন মন্ত্রনালয়সহ সংশ্লিষ্ট দপ্তরেও পৌঁছে দেনে তারা।

আমরা মুক্তিযোদ্ধার সংগঠন বিআইডব্লিউটিসি ইউনিট থেকে প্রদত্ত চিঠিতে জানা গেছে, বিআইডব্লিউটিসিতে কর্মরত মুক্তিযোদ্ধাদের জন্যে নারায়নগঞ্জের নিতাইগঞ্জে সংস্থার একটি কার্যালয় বরাদ্দ দেয়াা হয়। সম্প্রতি সংস্থায় কোনো মুক্তিযোদ্ধা কর্মরত না থাকলেও তার সন্তানেরা কর্মরত রয়েছে। কিন্তু চলতি ৫ সেপ্টেম্বরে কার্যালয়টি জাকির হোসেন চুন্নু ও তার সহযোগিরা তালা খুলে দখলে নিয়ে আসবাবপত্র স্থাপন করে ব্যক্তিগত কার্যালয় বানিয়ে ফেলেছে।

এ ঘটনার তীব্র নিন্দা জানিয়ে সঠিক তদন্তের মাধ্যমে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহনের দাবি জানান মুক্তিযোদ্ধাদের সন্তানেরা। এ ছাড়াও কার্যালয়টি পুনরুদ্ধার করে তাদের বরাবরে বরাদ্দ প্রদানেরও আবেদন জানান আমরা মুক্তিযোদ্ধার সন্তান বিআইডিব্লিউটিসি ইউনিট।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক সংস্থার কর্মচারীরা জানান, কার্যালয়টি এতদিন মুক্তিযোদ্ধাদের দখলে থাকলেও হঠাৎ করেই কাউকে না বলে তালা  খুলে দখল করে নেয় চুন্নু ও তার সহযোগিরা। এখন কার্যালয়টি চুন্নুগংদের জুয়ার আসরসহ অপকর্মের আস্তানা হিসাবে গড়ে উঠেছে। আর চুন্নুগং  শ্রমিকলীগ সভাপতি শুক্কুর মাহমুদের সহযোগি হওয়ায় প্রশাসনসহ কেউই তাদের বিরুদ্ধে কথা বলতে চায় না। চুন্নু নারায়নগঞ্জের নৌপথেরও একজন সক্রিয় চিহ্নিত চাঁদাবাজ হিসেবে পরিচিত। সবুজ সিকদারসহ তাদের বিরুদ্ধে চাঁদাবাজির অসংখ্য অভিযোগ রয়েছে।

এ প্রসঙ্গে জানতে বিআইডব্লিউটিসি চেয়ারম্যান তাজুল ইসলাম বলেন, চিঠির বিষয়টি আমার জানা নেই। কার্যালয়টি মুক্তিযোদ্ধাদের সন্তান যারা তারাই ব্যবহার করবে। কিন্তু সেটি কেউ দখল করে ব্যক্তিগত অফিস করেছে কিনা জানা নেই। আর কেউ করে থাকলেও সেটি তারা করতে পারবে না। এ ব্যাপারে আমি ব্যবস্থা নিচ্ছি।

একই প্রসঙ্গে জানতে চাইলে বিআইডব্লিউটিসি’র আঞ্চলিক ম্যানেজার আজমল হোসেন বলেন, বিষয়টি আমার জানা নেই। আমি জানি না।

২২ সেপ্টেম্বর, ২০১৯/এসপি/এনটি

উপরে