NarayanganjToday

শিরোনাম

ভাতিজির সরলতার সুযোগে চাচার প্রতারণা!


ভাতিজির সরলতার সুযোগে চাচার প্রতারণা!

কয়েক দফায় ২০ লাখ টাকা পরিশোধ করেও ফ্ল্যাট বুঝে পাচ্ছে না শিফা আক্তার নামে এক গৃহবধূ। উপরন্ত ফ্ল্যাট বুঝিয়ে দিতে বলাতে এলাকা ছাড়া করার হুমকিও প্রদান করা হচ্ছে, এমন অভিযোগ তুলে নিজের চাচা শ্বশুর শহিদুল ইসলাম শহিদের বিরুদ্ধে পুলিশ সুপার বরাবর অভিযোগ দিয়েছেন ভুক্তভোগি।

১৯ মে লিখিত ওই অভিযোগটি নারায়ণগঞ্জ জেলা পুলিশ সুপার বরাবর প্রদান করা হয়। তবে, ফ্ল্যাট বাবদ টাকা নেওয়ার বিষয়টি অস্বীকার করেছেন অভিযুক্ত চাচা শ্বশুর।

অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, সিদ্ধিরগঞ্জ থানাধীন নিমাইকাশারী সানারপাড় এলাকার হাজী কালাচাঁন ভ্যালী’র মালিক শহিদুল ইসলাম শহিদ স্বাক্ষরিত প্যাডে ভাতিজি শিফা আক্তার দুই দফায় ১৬ লক্ষ টাকা হাজী কালাচাঁন ভিলার ৫ম তলার ১টি ফ্লাট ক্রয়ের চুক্তিতে প্রদান করে। ফ্লাট রেজিষ্ট্রি করে দেওয়ার মর্মে আরো ৪ লক্ষ টাকা নগদ প্রদান করা হয়। যা ঐ প্যাডে উল্লেখ নেই।

অভিযোগে শিফা আক্তার উল্লেখ করেন, মো. শহিদুল ইসলাম সম্পর্কে আমার চাচা শ্বশুর ও উকিল বাবা। সেই সুবাদে সরল বিশ^াসে মৌখিক কথায় তার কোম্পানীর প্যাডে টাকাগুলো প্রদান করি। কিন্তু তিনি আমার সরলতার সুযোগ নিয়ে আমার নামের ঐ ফ্লাটটি অন্যত্র বেশি দামে বিক্রি করে দেয়। আমি আমার সহায় সম্পত্তি বিক্রি করে উক্ত ফ্লাটটি ক্রয়ের জন্য তাকে টাকাগুলো প্রদান করেছি। ফ্লাটের বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি আমাকে এলাকা ছাড়া করবে বলে হুশিয়ারি দিয়ে প্রাণ নাশের হুমকি দেয়। এমতাবস্থায় আমি আতঙ্কগ্রস্থ, যেকোন সময় জোরপূর্বক স্বাক্ষর নিয়ে আমাকে ফ্লাট দেওয়া থেকে বঞ্চিত করতে পারে শহিদুল। এমতাবস্থায় আইনের স্বরণাপন্য হয়ে ভুক্তভোগী শিফা আক্তার ন্যায় বিচারের দাবি জানিয়েছেন।

অভিযুক্ত শহিদুল ইসলাম জানান, কিছুদিন ধরে আমাদের পারিবারিকভাবে মনমালিন্য চলছে। এর রেশ ধরেই আমাকে হেয় প্রতিপন্ন করার উদ্দেশ্যে আমার বিরুদ্ধে অপপ্রচার করছে তারা। তাছাড়া ফ্লাট বিক্রির বিষয়ে কোন টাকা লেনদেন হয়নি উল্লেখ করে তিনি বলেন, আমার স্বাক্ষর’সহ টাকার হিসেব দেখিয়ে যে প্যাড দেখানো হয়েছে সেটাতে আমার স্বাক্ষর নেই। আমি সবসময় বাংলায় স্বাক্ষর করি। উক্ত ইংরেজী স্বাক্ষরটি আমার না।

২১, ২০২০/এসপি/এনটি

উপরে