NarayanganjToday

শিরোনাম

ফতুল্লায় একই পরিবারের ১৮ জন করোনায় আক্রান্ত


ফতুল্লায় একই পরিবারের ১৮ জন করোনায় আক্রান্ত

নারায়ণগঞ্জ জেলা সিভিল সার্জনের এক কর্মকর্তার পরিবারের ১৮ জনের দেহে করোনাভাইরাস শনাক্ত হয়েছে। পরিবারটি সদর উপজেলার ফতুল্লা কুতুবপুরের দেলপাড়া এলাকায় বসবাস করেন।

মঙ্গলবার (২৮ এপ্রিল) দুপুরের দিকে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন জেলা করোনা বিষয়ক ফোকাল পার্সন ও সদর উপজেলার স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডা. জাহিদুল ইসলাম। তবে, তার দাবি সংখ্যাটা আঠার নয় সতের।

সূত্র জানায়, নারায়ণগঞ্জ জেলা সিভিল সার্জন কার্যালয়ের মেডিকেল অফিসার ডা. শিল্পী আক্তারের পরিবারের ১৮ জন সদস্যের শরীরে করোনাভাইরাস শনাক্ত হয়। সোমববার এ বিষয়টি পরীক্ষার পর নিশ্চিত হওয়া যায়।

সূত্র আরও জানিয়েছে, প্রথমে ডা. শিল্পী আক্তারের ভাই আনিসের দেহে করোনা পজিটিভ শনাক্ত হয়। এরপর সন্দেহ হলে পরিবারের অন্যান্য সদস্যদের নমুনা পরীক্ষার জন্য পাঠালে সোমবার প্রাপ্ত রিপোর্টে তাদের পজিটিভের ভিষয়টি নিশ্চিত করা হয়।

ডা. শিল্পী আক্তার জানান, সিভিল সার্জন অফিসে তার জন্য খাবার দিয়ে যেতেন তার ছোট ভাই। হঠাৎ সে অসুস্থ হয়ে পড়লে তার পরীক্ষা করা হয়। ২১ এপ্রিল তার পজিটিভ শনাক্ত হয়। পরে পরিবারের অন্য কারোর কোনো উপসর্গ না থাকলেও সন্দেহবশত ২৩ এপ্রিল বাকি আরও ১৮ সদস্যেরও নমুনা পরীক্ষা করা হয়। এতে সাত বছরের এক শিশু ছাড়া ১৭ জনেরই পজিটিভ ধরা পড়ে।

তিনি আরও বলেন, আমার বাবার বাড়ির পরিবারের ১৮ জনই পজিটিভ। তবে তাদের কোনো উপসর্গ নেই। প্রথম ছোট ভাইয়ের পজেটিভ পাওয়াতে বাকিদের পরীক্ষা করিয়েছিলাম। সকলেই বাড়িতে আইসোলেশনে আছে।

এ বিষয়ে জেলা সিভিল সার্জন ডা. মোহাম্মদ ইমতিয়াজ বলেন, মেডিকেল অফিসার শিল্পী আক্তারের শরীরে করোনা পজিটিভ আসেনি। তবে তার পরিবারের বেশ কয়েকজন সদস্য ও বাড়ির আশপাশে থাকা নিকট আত্মীয় স্বজনসহ ১৮ জনের পজিটিভ এসেছে।

সিভিল সার্জন বলেন, নমুনা পরীক্ষায় পজিটিভ এলেও আক্রান্তদের মধ্যে করোনার কোনো ধরণের উপসর্গ নেই। শারীরিক অবস্থাও মোটামুটি ভালো। তারা সবাই নিজ নিজ বাড়িতে আইসোলেশনে আছেন।

২৮ এপ্রিল, ২০২০/এসপি/এনটি

উপরে