NarayanganjToday

শিরোনাম

কাঁচপুরের সাজেদায় হবে করোনা আক্রান্তদের চিকিৎসা


কাঁচপুরের সাজেদায় হবে করোনা আক্রান্তদের চিকিৎসা

সরকারি হসপিটালের পাশাপাশি এবার করোনাভাইরাস আক্রান্ত রোগীদের যৌথভাবে চিকিৎসা দিবে সাজেদা ফাউন্ডেশন ও রেনাটা লিমিটেড। স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের অনুমতিক্রমে নারায়ণগঞ্জের সোনাগারঁ উপজেলার কাঁচপুরে সাজেদা হসপিটালেই হবে করোনা আক্রান্তদের চিকিৎসা।

এ লক্ষ্যে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের সাথে ২২ মার্চ একটি সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষর করেছে সাজেদা ফাউন্ডেশন ও রেনাটা। স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী জাহিদ মালেকের উপস্থিতিতে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের পক্ষে এ সমঝোতা স্মারকে স্বাক্ষর করেন এর মহাপরিচালক অধ্যাপক আবুল কালাম আজাদ এবং সাজেদা ফাউন্ডেশনের পক্ষে স্বাক্ষর করেন সংস্থাটির প্রধান নির্বাহী জাহেদা ফিজ্জা কবীর।

এ সময় আরও উপস্থিত ছিলেন স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয়ের স্বাস্থ্যসেবা বিভাগের সচিব আসাদুল ইসলাম এবং স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রণালয়ের জ্যেষ্ঠ সচিব হেলাল উদ্দীন আহমেদ।

বিশ্বজুড়ে সঙ্কট তৈরি করা প্রাণঘাতী কোভিড-১৯ এর ঝুঁকিতে রয়েছে বাংলাদেশও। এর বিস্তার ও সঙ্কট মোকাবিলায় বাংলাদেশ সরকারের স্বাস্থ্য অধিদপ্তর জানিয়েছে, নারায়ণগঞ্জের কাঁচপুরে সাজেদা হাসপাতালকে ৫০ শয্যার কোয়ারেন্টিন, ট্রিটমেন্ট সেন্টার হিসেবে প্রস্তুত করা হবে। দেশের অন্যতম বৃহৎ ঔষধ প্রস্তুতকারী প্রতিষ্ঠান রেনাটা লিমিটেডের সহায়তায় যৌথভাবে এর কার্যক্রম পরিচালনা করবে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর এবং বেসরকারি উন্নয়ন সংস্থা সাজেদা ফাউন্ডেশন।

এ হাসপাতালে কোয়ারেন্টিন সুবিধার পাশাপাশি কভিড-১৯ আক্রান্ত রোগীর চিকিৎসা, আইসিইউ এবং ডায়ালিসিস সেবা যুক্ত থাকবে। এক্ষেত্রে, প্রয়োজনীয় দক্ষতা উন্নয়ন, কারিগরি ও পর্যবেক্ষণ সেবা প্রদান করবে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর। এছাড়াও, দেশের বিভিন্ন জেলায় চিকিৎসক ও স্বাস্থ্যকর্মীদের মাঝে ১০ হাজার পারসোনার প্রোটেকটিভ ইকুইপমেন্ট (পিপিই) বিতরণ করবে সাজেদা ফাউন্ডেশন ও রেনাটা লিমিটেড।

নারায়ণগঞ্জ জেলা সিভিল সার্জন ডা. ইমতিয়াজ আহম্মেদ জানিয়েছেন, ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কে সোনারগাঁ উপজেলার কাঁচপুর এলাকায় বেসরকারি স্বাস্থ্যসেবা প্রতিষ্ঠান সাজেদা হাসপাতালে করোনা আক্রান্তদের চিকিৎসা দেওয়া হবে। এখানে করোনা রোগীদের স্বাস্থ্যসেবার জন্য ৫০ শয্যা নির্ধারণ করা হয়েছে। স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের সাথে ইতোমধ্যে এ সংক্রান্ত চুক্তি স্বাক্ষরিত হয়েছে।

২৪ মার্চ, ২০২০/এসপি/এনটি

উপরে