NarayanganjToday

শিরোনাম

দেশের প্রথম করোনা রোগী দুজনই নারায়ণগঞ্জের


দেশের প্রথম করোনা রোগী দুজনই নারায়ণগঞ্জের

বাংলাদেশে করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত রোগি তিনজনের দুজনই নারায়ণগঞ্জের বাসিন্দা। এবং তারা দুজন স্বামী স্ত্রী বলে নিশ্চিত হওয়া গেছে। সম্প্রতি তারা ইতালি থেকে দেশে ফিরেছিলেন। রোববার (৮ মার্চ) রাতে নারায়ণগঞ্জ সিভিল সার্জন ডা. মোহাম্মদ ইমতিয়াজ নারায়ণগঞ্জ টুডে’কে এ খবর নিশ্চিত করেছেন।

তিনি জানিয়েছেন, যে তিনজন করোনা আক্রান্ত রোগী শনাক্ত করা হয়েছে তাদের মধ্যে দুজনই হচ্ছেন নারায়ণগঞ্জের বাসিন্দা। তারা ঢাকাতে চিকিৎসাধিন রয়েছেন। তবে, কোথায় ভর্তি রয়েছেন তারা সেটি আমি নিশ্চিত নই।

এর আগে এদিন দুপুরের দিকে সরকারের রোগতত্ত্ব, রোগ নিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা প্রতিষ্ঠান (আইইডিসিআর)-এর পরিচালক মীরজাদী সেব্রিনা ফ্লোরা জানান, বাংলাদেশে তিনজনকে করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত রোগী হিসেবে চিহ্নিত করা হয়েছে। কোভিড-১৯ আক্রান্ত এই তিন ব্যক্তির মধ্যে দুজন ইতালি থেকে দেশে ফিরেছেন। এদের মধ্যে দুজন পুরুষ, অপরজন নারী।

আইইডিসিআর-এর নিয়মিত ব্রিফিংয়ে এমন তথ্য জানানোর পরপরই শোনা যায় আক্রান্ত তিনজন রোগীর মধ্যে দুজনই নারায়ণগঞ্জের বাসিন্দা।

ডা. ইমতিয়াজ নারায়ণগঞ্জ টুডে’কে জানিয়েছেন এ নিয়ে নারায়ণগঞ্জের লোকজনদের আতঙ্কিত না হবার পরামর্শ দিয়েছেন তিনি। সরকারিভাবে যেসব নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে সেসব নির্দেশনা সকলকে মেনে চলারও পরামর্শ দিয়েছেন তিনি।

তবে একটি সূত্র জানিয়েছে, আক্রান্ত দম্পতি নারায়ণগঞ্জ শহরের থানা পুকুরপাড় এলাকায় আল জয়নাল প্লাজায় থাকেন।

এদিকে আইইডিসিআর সূত্রে জানা গেছে, নারায়ণগঞ্জের এক বাসিন্দা ইতালি থেকে করোনা (কোভিড-১৯) আক্রান্ত হয়ে দেশে ফিরেছেন। বাসায় ফেরার পর তার সংস্পর্শে তার স্ত্রীও এই ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন। তাদের বয়স ২০ থেকে ৩৫-এর মধ্যে বলে জানা গেছে।

প্রতিষ্ঠানটির পরিচালক মীরজাদী সেব্রিনা ফ্লোরা জানান, জ্বর ও কাশি নিয়ে এই তিন ব্যক্তি শনিবার আইইডিসিআরের হটলাইনে যোগাযোগ করেন। এরপর গত ২৪ ঘণ্টায় তাদের নমুনা পরীক্ষা করা হয়। পরীক্ষায় তারা পজিটিভ প্রমাণিত হন। তবে তিনজনই ভালো আছেন। তারা হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আছেন। তিনজনেরই বিশেষ কোনও চিকিৎসার প্রয়োজন নেই। করোনার চিকিৎসা হচ্ছে সিম্পটোমেটিক অর্থাৎ লক্ষণ উপসর্গভিত্তিক। তারা সেই চিকিৎসাই পাচ্ছেন, তাদের অন্য কোনও সাপোর্টিভ চিকিৎসার প্রয়োজন হয়নি। তবে তারা আইসোলেশনেই থাকবেন। যতদিন পর্যন্ত পরপর দুটো নমুনাতে তারা নেগেটিভ প্রমাণ না হচ্ছেন ততদিন পর্যন্ত তারা আইসোলেশনেই থাকবেন।

৮ মার্চ, ২০২০/এসপি/এনটি

উপরে