NarayanganjToday

শিরোনাম

ফেসবুকে মোজাফ্ফর কন্ট্রাক্টরের নাতির সাথে তরুণীর অশ্লীল ছবিতে তোলপাড়


ফেসবুকে মোজাফ্ফর কন্ট্রাক্টরের নাতির সাথে তরুণীর অশ্লীল ছবিতে তোলপাড়
মূল ছবি প্রকাশযোগ্য নহে

শহরে রাতুল হাসান নামে একটি ফেসবুক আইডি থেকে এক তরুণীর আপত্তিজনক ছবি প্রকাশ করা নিয়ে ব্যাপত তোলপাড় সৃষ্টি হয়েছে। মঙ্গলবার (৩ মার্চ) দিনভর এই আইডি থেকে এক তরুণীর সাথে বেশ কিছু অন্তরঙ্গ মুহূর্তে ছবিসহ ন্যূড ছবি প্রকাশ নিয়ে শহরে ব্যাপক হই চই শুরু হয়েছে।

সূত্র জানায় রাতুল শহরের বাবুরাইল এলাকার মুজাফ্ফর আলী কন্ট্রাক্টারের ছেলে শুক্কুর অাদের। তিনি বিবাহিত। স্ত্রী সন্তান রেখে চলতি বছরের ১৩ ফেব্রুয়ারি বিএনপির ক্যাডার হাসানের সহযোগি মুক্তারের মেয়েকে নিয়ে পালিয়ে যায়। এখনও পর্যন্ত তারা পলাতক রয়েছে।

এদিকে পালিয়ে যাওয়া ওই তরুণীর সাথে বেশ কিছু অন্তরঙ্গ মুহূর্তের ছবি রাতুল হাসান তার আইডি থেকে পোস্ট করতে শুরু করেন। ছবিগুলো তাদের অন্তরঙ্গ মুহূর্তের। এসব ছবি ছাড়াও আরও কয়েকটি ছবি একই আইডি থেকে পোস্ট করা হয়। সেসব ছবিগুলো পুরোটাই নগ্ন। সবগুলো ছবিই ওই তরুণীকে ট্যাগ করা হয়। তবে, নগ্ন ছবিগুলো পোস্ট করার কিছু সময়ের মধ্যেই তা আবার মুছে দেওয়া হয়েছে।

সূত্র জানায়, অত্যন্ত ধনাঢ্য পরিবারের সন্তান রাতুল। তিনি বিবাহিত দুই সন্তানের জনক। এরমধ্যে তার সম্পর্ক গড়ে উঠে একই এলাকার মুক্তারের মেয়ের সঙ্গে। সেই সূত্র ধরে তারা চলতি বছরের ১৩ ফেব্রুয়ারি অজানার উদ্দেশ্যে পারি জমান। তবে, এ কদিন পুরো বিষয়টিই গোপন রাখা হয়েছিল। রাতুলের বড় ভাই রিয়াদ হাসান বিগত নির্বাচনে ১৬ নং ওয়ার্ডে কাউন্সিলর পদে নির্বাচন করেন। এতে তিনি নাজমুল আলম সজলের কাছে পরাজিত হন।

এদিকে মঙ্গলবার হঠাৎ করেই রাতুল হাসান তার ফেসবুক আইডিতে একপি পোস্ট করেন। সেখানে তিনি ভুল বানানে লিখেন, “আমারে বাঁচতে দিলা না তােমরা,...তোমাগো কথা মত চলতে হইব নাইলে জোর খাটাইবা,চলতাম না ,,,,আমি থাকমু না তােমাগাে লগে,/জোর কইরা থাকাইবা...???/কুত্তা বিলাই লাগে,...??? বাইন্ধা রাখবা,..??/তোমাগো টেকা আসে ক্ষমতা আসে, আমার নাই,তাই যুদ্ধ সরাসরি করতে পারমু না,/তবে মইরা যামু কিন্তু হারতাম না, লাষ্ট রিকোয়েষ্ট আমি কেউ না তােমাগাে, আমার লাশ ও দেখতে আসবা না,/একটাই পােলা তােমাগাে,যার টেকা আসে ক্ষমতা আসে, সাবেরে লইয়া ই থাক/পোলার চেয়ে মান ইজ্জত আর নির্বাচন বড় তােমাগাে কাছে, নির্বাচন লইয়া ই থাক, মনে হয় ঐ বাসায় সবাই বাইচ্চা ই আসে একজনের নির্বাচন করার লেগা, নেতার নির্বাচন করা ছারা আর কেউর কোন লক্ষ্য ই নাই ঐ বাসায়,আমি এমন লাইফ এর কপালে উষ্টা মারি, আটকাইতে পারবা দমাইতে পারবা না,”।

এরপরই ওই তরুণী সঙ্গে বেশ কিছু অন্তরঙ্গ ছবি পর্যায়ক্রমে পোস্ট করতে থাকেন। এরমধ্যে এক সঙ্গে বেশ কিছু ছবি পোস্ট দিয়ে লিখেন, “বিয়ের ৩ ৪ মাস আগের পিক...ছবির নিচে তারিখ আছে...বউয়ের মোবাইলে নিজ হাতে তোলা...ছবি তুলতে মুরুব্বী লাগে নাই...ছবির নিচে তারখি আর সময় আসে...”।

এদিকে ধারণা করা হচ্ছে, রাতুল হাসান ওই তরুণীকে নিয়ে পালিয়ে যাওয়ার পরই বিয়ে করেছেন। তবে, কেন তিনি এসব অন্তরঙ্গ মুহূর্তের ছবি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে পোস্ট করছেন, সে বিষয়ে স্পষ্ট হওয়া যায়নি। কিন্তু এসব ছবি নিয়ে শহরে ব্যাপক তোলপাড় শুরু হয়েছে।

এদিকে রাতুলের বড় ভাই রিয়াদ হাসানের সঙ্গে এ বিষয়ে জানতে তার মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলেও সেটি বন্ধ পাওয়া যায়। ফলে তার পক্ষ থেকে কোনো ধরণের বক্তব্য গ্রহণ করা সম্ভব হয়নি। পরবর্তীতে তার বক্তব্য পাওয়া গেলে প্রতিবেদনে সংযুক্ত করা হবে।

অন্যদিকে স্থানীয় ১৬ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর নাজমুল আলম সজলের সঙ্গে এ প্রসঙ্গে জানতে চাইলে তিনি বলেন, রিয়াদ অত্যন্ত ভালো ছেলে। বেশ দারুণ স্নোকার খেলেন। সে ভীষণ ভদ্রলোক। তার একজন ভাই আছে জানি। কিন্তু আমি কখনো তাকে দেখিনি। আর ফেসবুকে ছবি পোস্ট করার ব্যাপারে আমার কিছু জানা নেই। এ ব্যাপারে কেউ আমার সরণাপন্ন হয়নি। এমনকি অভিযোগও করেননি।

এ প্রসঙ্গে নারায়ণগঞ্জ সদর মডেল থানা পুলিশের কাছেও কোনো রকম অভিযোগ কেউ করেনি বলে জানিয়েছেন পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) মোস্তাফিজুর রহমান।

৩ মার্চ, ২০২০/এসপি/এনটি

উপরে