NarayanganjToday

শিরোনাম

কিশোরীকে পালাক্রমে ধর্ষণ, আদালতে গ্রেফতার দুজনের দোষ স্বীকার


কিশোরীকে পালাক্রমে ধর্ষণ, আদালতে গ্রেফতার দুজনের দোষ স্বীকার

ফতুল্লায় ১৪ বছরের এক কিশোরীকে পালাক্রমে ধর্ষণের দায় স্বীকার করে নারায়ণগঞ্জের পৃথক দুটি আদালতে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছে গ্রেফতার দুজন।

বৃহস্পতিবার (১৩ ফেব্রুয়ারি) বিকেলের দিকে সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আফতাবুজ্জামান ও মাহমুদুল মোহসীনের আদালত পৃথকভাবে তাদের জবানবন্দি রেকর্ড করেন বলে নিশ্চিত করেছেন জিআর শাখার সাইফুল ইসলাম এর সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।

এর আগে নিজের ১৪ বছরের কিশোরী মেয়েকে পালাক্রমে ধর্ষণের অভিযোগ এনে ফতুল্লা মডেল থানায় তিনজনকে আসামী করে মামলা করেন একজন সিএনজি চালক। পরে পুলিশ অভিযান চালিয়ে রনি (১৮) ও হৃদয় (১৮) নামে দুজনকে গ্রেফতার করে এবং তারা পুলিশের কাছে নিজের দোষ স্বীকার করে আদালতে ১৬৪ ধারায় জবানবন্দি দিতে রাজি হলে পুলিশ বৃহস্পতিবার দুপুরের দিকে তাদেরকে আদালতে প্রেরণ করে।

আদালতে দোষ স্বীকার করে জবানবন্দি প্রদান করা রনি ফতুল্লার তল্লা সবুজবাগ এলাকার ব্যাঙ্কার মতি মিয়ার বাড়ির ভাড়াটিয়া মনির হোসেনের ছেলে এবং হৃদয় কাঠেরপুল এলাকার জয়নাল মিয়ার বাড়ির ভাড়াটিয়া হাশেমের ছেলে। এই মামলায় হৃদয় (২২) নামে আল্লাহ ভরসা গাড়ির হেলপার পলাতক রয়েছে।

এজাহার সূত্রে জানা গেছে, ফতুল্লার ভূইগড় এলাকায় বাবা মায়ের সাথে ভাড়া বাড়িতে বসবাস করেন কিশোরী (১৪)। তার সাথে পূর্বে চেনা পরিচয় ছিলো মামলার এক নং আসামী রনির সাথে। ১১ ফেব্রæয়ারি রাত ৯ টার দিকে সে ওই কিশোরীকে ফুঁসলিয়ে বাড়ি থেকে বের করে এনে তল্লা সবুজবাগ এলাকায় তার চাচা মামুন মিয়ার বাসায় এনে তিনজন মিলে পালাক্রমে ধর্ষণ করে।

ফতুল্লা মডেল থানার পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) শাহাদাত হোসেন এর সত্যতা নিশ্চিত করে বলেছেন, অভিযোগ পাওয়ার সাথে সাথেই রনি ও হৃদয় নামের দুজনকে বুধবার রাতে গ্রেফতার করি। পরে জিজ্ঞাসাবাদে তারা ঘটনার সাথে জড়িত রয়েছে জানায় এবং ১৬৪ ধারায় জবানবন্দি দিতে রাজি হলে তাদেরকে আদালতে প্রেরণ করি।

১৩ ফেব্রুয়ারি, ২০২০/এসপি/এনটি

উপরে