NarayanganjToday

শিরোনাম

যে চিঠি নিয়ে নারায়ণগঞ্জ সাংবাদিক সমাজে তোলপাড়


যে চিঠি নিয়ে নারায়ণগঞ্জ সাংবাদিক সমাজে তোলপাড়

নারায়ণগঞ্জের সাংবাদিক সমাজের মধ্যে একটি উড়োচিঠি নিয়ে ব্যাপক তোলপাড় শুরু হয়েছে। চলছে আলোচনা সমালোচনা। রেজিস্ট্রি ডাকে ৯ ফেব্রæয়ারি নারায়ণগঞ্জ সাংবাদিক ইউনিয়নের সভাপতি বরাবর এই চিঠিটি আসে।

এদিকে চিঠিটির প্রেরক জসিম উদ্দিন। তিনি নিজেকে ‘ব্লু পিয়ার’ এর ম্যানেজার হিসেবে দাবি করেছেন। তবে, ব্লু পিয়ার কর্তৃপক্ষ বলছেন, এই নামে তারা কাউকে চিনেন না। তাদের ম্যানেজারের নাম জুয়েল।

চিঠি স‚ত্রে জানা গেছে, গত দু মাস আগে নারায়ণগঞ্জ প্রেস ক্লাবের সাবেক সাধারণ সম্পাদক পরিচয় দিয়ে ব্লু পিয়ারে আসেন খন্দকার শাহ আলম। তিনি নিজেকে প্যারাডাইজ কেসেল ভবনের একাংশের মালিক মজিবুর রহমানের বন্ধু হিসেবেও পরিচয় দেন। এসময় তিনি ব্লু পিয়ার রেস্টুরেন্টের মালিককে বার করার প্রস্তাব দেন। এবং এর কর্তৃপক্ষের সাথে পার্টানারে মদ সাপ্লাই দেওয়ার প্রস্তাব করেন।

চিঠিতে আরও উল্লেখ রয়েছে, খন্দকার শাহ আলমের প্রস্তাবে ব্লু পিয়ার মালিকেরা রাজি হলে তিনি ৫০ শতাংশ শেয়ার দাবি করেন। অন্যথায় তিনি সাংবাদিকদের মাধ্যমে বার বন্ধের হুমকি দেন। এবং প্রেস ক্লাব সভাপতি মাহবুবুর রহমান মাসুমের মাধ্যমে জেলা প্রশাসকের কাছে বিষয়টি উপস্থাপিত করা হবে।

চিঠির আরেকটি অংশে রয়েছে, খন্দকার শাহ আলম প্রেসক্লাবের কয়েকজ কর্মকর্তাকে ম্যানেজ করার জন্য প্রতিমাসে ডোনেশ চেয়েছিলেন এবং স্থানীয় পত্রিকার সম্পাদকদের ম্যানেজ করারও দায়িত্ব নিবেন। বিনিময়ে তিনি এর থেকে টাকাও দাবি করেছিলেন।

তবে, চিঠিতে প্রেরকের নামের অংশে জসিম উদ্দিন লেখা থাকলেও এতে কোনো স্বাক্ষর ছিল না। কম্পিউটার টাইপকৃত এই চিঠিটি নারায়ণগঞ্জের ঠিকানা থেকেই সাংবাদিক ইউনিয়ন সভাপতির বরাবর প্রেরণ করা হয়েছে বলে চিঠি স‚ত্রে জানা গেছে।

তবে, এ অভিযোগ প্রসঙ্গে খন্দকার শাহ আলম দাবি করেছেন, পুরো বিষয়টিই উদ্দেশ্য প্রণোদিত। তিনি বলেন, কোনো একটি পক্ষ আমার সম্মান ক্ষুন্ন করার জন্যই এমন একটি উড়োচিঠি পাঠিয়েছে। এর সাথে আমার কোনো সম্পৃক্ততা নেই। পুরোটাই মিথ্যা ও বানোয়াট।

অন্যদিকে বøু পিয়ার রেস্টুরেন্টের সিইও গাজী মুক্তার হোসেন জানিয়েছেন, এমন কোনো চিঠি তারা প্রেরণ করেননি। খন্দকার শাহ আলম নামে কেউ তাদের কাছে আসেওনি। তাছাড়া জসিম উদ্দিন নামে কাউকে তারা চিনেন না। এই নামে কোনো ম্যানেজারও তাদের নেই।

অপরদিকে এই চিঠি প্রসঙ্গে নারায়ণগঞ্জ প্রেস ক্লাবের সভাপতি অ্যাড. মাহবুবুর রহমান মাসুম বলেন, আমরা কোনো চিঠি পাইনি। তাই চিঠি প্রসঙ্গে কোনো মন্তব্য করতে পারছি না। শুধু এটুকু বলতে পারি, প্রেস ক্লাবের নাম করে আমাদের কেউ যদি কোনো অপকর্ম করে, সেটা যদি আমিও হই তাহলে কোনো ছাড় পাবে না। গঠণতন্ত্র মোতাবেক তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

১০ ফেব্রুয়ারি, ২০২০/এসপি/এনটি

উপরে